বিসিএস প্রিলি: কী পড়বো, কী বাদ দেব

লেখাটি আমার ব্যক্তিগত প্রস্তুতি কৌশল ও পঠিত বইয়ের তালিকা লিখছি। কারণ পরিচিত-অপরিচিত অনেকেই ইতোমধ্যে আমার বই তালিকা ও প্রস্তুতি সংক্রান্ত খুঁটিনাটি বিষয় জানতে চেয়েছেন।

প্রথমেই যে কথা বলে নেয়া দরকার বিসিএস নিয়ে আমার অভিজ্ঞতা অন্যদের চেয়ে যথেষ্ট কম (যেহেতু ৪০তমই আমার প্রথম বিসিএস), এবং আমি কোনো এক্সপার্টও নই। তাই এ লেখার আলোচনাকে সাফল্যের অব্যর্থ উপায় হিসেবে বিবেচনা না করার পরামর্শ রইলো।

বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় ২০০ মার্কসের মধ্যে ১২০ পেলেই মোটামুটি নিরাপদ থাকা যায়। তাই প্রথম টার্গেট থাকবে ১২০ অতিক্রম করা। এজন্য প্রথমেই পড়াশুনায় উচ্চবিলাসিতা (সামনে যাই পাবো তাই পড়বো) ত্যাগ করার পাশাপাশি ‘কি কি পড়বো, আর কি কি বাদ দেবো’ তা নির্ধারণ করার দক্ষতা অর্জন করা দরকার।

এ দক্ষতা অর্জন করার উপায় কি? প্রথমেই ১-২বার প্রিভিয়াস প্রশ্ন পড়ে নেয়া। এতে কোন কোন জায়গা থেকে প্রশ্ন বেশি আসে তার একটা ধারণা জন্মাবে।

বিষয়ভিত্তিক আলোচনা

বাংলা সাহিত্য
১. প্রফেসর’স বাংলা ভাষা ও সাহিত্য।
২. অগ্রদূত বাংলা।

প্রস্তুতির প্রথম দিকে বাংলা সাহিত্য মনে রাখতে খুব কষ্ট হতো। কিন্তু ধীরে ধীরে দেখলাম এটি আমার একটি পছন্দের বিষয়ে পরিণত হয়েছে। মনে রাখা নিয়েও খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি তখন। এক্ষেত্রে আমি সাহিত্যের ২০ মার্কসের মধ্যে প্রাচীন ও মধ্যযুগকে বিশেষ প্রাধান্য দেই। কেননা এখানে ৫-৬ মার্কসের জন্য আমাকে প্রাচীন ও মধ্যযুগের ওই নির্দিষ্ট অংশটুকু পুরোপুরি পড়লেই হচ্ছে।

আধুনিক যুগের সীমানা বিস্তৃত। তাই এখানে প্রফেসর’স বইয়ে যেসব সাহিত্যিক আছে তাদের মধ্যে প্রধান প্রধান সাহিত্যিকদের ডিটেইলস পড়েছি। অন্যদের মূল তথ্যগুলো, পাশাপাশি এর বাইরে অগ্রদূত বাংলা ও সৌমিত্র শেখরের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য জিজ্ঞাস থেকে গুরত্বপূর্ণ যেসব আছে তা পড়েছি (সাপ্লিমেন্টারি হিসেবে)।

বাংলা সাহিত্য নিয়ে যে প্রশ্ন সবচেয়ে বেশি করা হয়: সাহিত্যকর্ম মনে থাকেনা? কোনটা কোন ধরনের সাহিত্যকর্ম তা মনে থাকে না? উত্তর: বারবার পড়া ছাড়া অন্য কোনো কৌশল আমার জানা নেই।

বাংলা ভাষা
১. নবম-দশম শ্রেণির বাংলা ভাষার ব্যাকরণ (বোর্ড বই)।
২. অগ্রদূত বাংলা।

সাহিত্য যতটুকু আমার পছন্দের যায়গা, বাংলা গ্রামার ঠিক ততটুকুই আতঙ্কের জায়গা। বিসিএস প্রস্তুতির ৩.৫ বছরে সবচেয়ে বেশি সময় এ বিষয়ে দেয়া হয়েছে। তারপরও একে পুরোপুরি বশে আনতে পারিনি।

৪০-এ সময় কম থাকায় সমাস, প্রকৃতি-প্রত্যয়সহ অনেক কিছুই বাদ দিয়ে পড়ি (শুধু প্রিভিয়াস প্রশ্ন পড়ে যাই)। এর ফলে ৪০-এ গ্রামার অংশ সহজ হওয়া সত্ত্বেও আমার খারাপ হয়। পরবর্তীতে ৪১-এ পর্যাপ্ত সময় থাকায় সবগুলো টপিক পড়ি। এক্ষেত্রে যেকোনো টপিকের প্রথমে বোর্ড বই থেকে পড়ি। তারপর অগ্রদূত থেকে পড়ে পেছনের প্রশ্ন সলভ করি।

ইংরেজি গ্রামার
১. Master English.
২. Saifur’s Student Vocabulary.

বিসিএসের ইংরেজি গ্রামার পার্টটা ৭০%-ই Parts of speech বলে মনে হয়। যে একদম খুঁটিনাটিসহ Parts of speech জানবেন, সে গ্রামারে এগিয়ে থাকবেন। উদাহরণ স্বরুপ বলা যায়: Phrase & Clause-কে আমরা আলাদা একটা টপিক বলে বিবেচনা করি। কিন্তু এটাও Parts of speech-এর অংশই।

Noun, Adj, Adv বুঝলে কোনটা কোন Clause-তা বুঝতে কোনো বেগ পেতে হবে না। মাস্টার বইটি অনেক বড় হলেও এর সুবিধা হলো প্রচুর প্রাকটিসের ব্যবস্থা আছে। আর ইংরেজি গ্রামারে প্রাকটিসের প্রয়োজনীয়তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এছাড়া, ৪০-এ সাইফোর্সের Vocabulary পড়া হয়েছে। পাশাপাশি সময় পেলে প্রতিদিন ডেইলি স্টারের ইডিটোরিয়াল পড়ুন।

ইংরেজি সাহিত্য
১. A Handbook on English Literature.

ইংরেজি সাহিত্যও বাংলা সাহিত্যের মতো ‘মনে না থাকার’ বিষয়। এ বিষয়ে আগে বলা হতো বেসিক কিছু জিনিস জেনে গেলেই ৮-৯ পাওয়া যায়। কিন্তু ৪০, ৪১, ৪৩-এ দেখলাম প্রশ্ন আগের চেয়ে কিছুটা কঠিন করছে। তাই ৪১ থেকে বইটা ডিটেইলস পড়ার চেষ্টা করেছি। এক্ষেত্রে পরীক্ষার ২-৩ মাস আগে একবার পড়ে রাখতাম। আর পরীক্ষার ১৫ দিন আগে একবার পড়তাম, আর পরীক্ষার ১-২ দিন আগে একবার চোখ বুলিয়ে নিতাম।

গণিত

১. ৭ম, ৮ম, ৯-১০ম গণিত বই, উচ্চতর গণিত থেকে সিলেবাস রিলেটেড অধ্যায়গুলো, HSC থেকে সম্ভাব্যতা, বিন্যাস ও সমাবেশ ও সরলরেখা। ম্যাথের প্রিলির জন্য আলাদা করে গাইড বই পড়তে হয়নি। তবে আপনারা ‘Khairuls Basic Math’ বইটিও প্রাকটিস করতে পারেন।

আরও পড়ুন: কম পড়ে প্রিলি পাসের ১০ টেকনিক

ম্যাথ নিয়ে যাঁরা চিন্তিত তাঁদের একটা ছোট্ট পরামর্শ দেই: কোনো একটি ম্যাথ চর্চা করতে গেলে সবার আগে প্রশ্নটি ভালোভাবে পড়ে নিজে নিজে করার চেষ্টা করবেন (একান্তই না পারলে সমাধান দেখবেন)। সমাধান করার পর এবার ভাববেন এটি আর অন্য কি কি উপায়ে সমাধান করা যায়? আবার এই প্রশ্নটিই অন্য কিভাবে দিতে পারে? ঘুরিয়ে দিলে কিভাবে সমাধান করা যায়? এসব ভাবতে হয়তো সময় ব্যয় হবে। একটা ম্যাথ নিয়েই অনেকক্ষণ পড়ে থাকতে হতে পারে। তবে এগুলো আপনার ম্যাথের ব্যাসিক স্ট্রং করতে সহায়ক হবে।

মানসিক দক্ষতা
১. Khairuls Mental Ability.

মানসিক দক্ষতার গাণিতিক সমস্যাগুলো ম্যাথের অংশেই করা হয়ে যায়। এছাড়াও এখানে ভোকাবুলারি, বানানের একটি অংশ থাকে, যা ইংরেজি ও বাংলা গ্রামারেই পড়া হয়ে যায়। এর বাইরের অংশটুকু পড়তে হয়।

বিজ্ঞান
১. জর্জ MP3 দৈনন্দিন বিজ্ঞান।
২. নবম-দশম শ্রেণির সাধারণ বিজ্ঞান।

প্রথমেই MP3 বিজ্ঞানটা একবার শেষ করে এবার নবম দশম শ্রেণির বইটি ধরলে তেমন বেগ পেতে হয় না। এক্ষেত্রে কেবল অতিরিক্ত তথ্যগুলো কোথাও টুকে নিলে বারবার বোর্ড বইটি পড়া লাগেনা।

কম্পিউটার
১. Easy কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি।

বর্তমানে কম্পিউটার প্রশ্ন আগের চেয়ে স্ট্যান্ডার্ড হয়। তাই ভালো প্রস্তুতির জন্য পাশাপাশি উচ্চ-মাধ্যমিকের মাহবুবুর রহমান/প্রকৌশলী মুজিবুর রহমানের বই পড়তে পারেন।

বাংলাদেশ বিষয়াবলি
১. জর্জ MP3 বাংলাদেশ বিষয়াবলি।
২. বাংলাদেশের সংবিধান, আরিফ খাঁন।
৩. নিয়মিত পত্রিকা পড়া ও পরীক্ষার আগে একটি রিসেন্ট এফেয়ার্সের ছোট্ট বই পড়ে নেয়া।

৪০-এ পর্যাপ্ত সময় না পাওয়ায় কোনো মৌলিক বই পড়তে পারিনি। তবে ৪১-এর পূর্বে করোনাকালে পর্যাপ্ত সময় পাওয়ায় বেশ কিছু মৌলিক বই (নবম-দশম শ্রেণির বই, স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস, বঙ্গবন্ধুর বইসমূহ, আমার দেখা রাজনীতির ৫০ বছর, ইত্যাদি……) পড়েছি। পর্যাপ্ত সময় পেলে পড়তে পারেন।

আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি
১. জর্জ MP3 আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি।
২. নিয়মিত পত্রিকার আন্তর্জাতিক পাতা পড়া ও পরীক্ষার আগে একটি রিসেন্ট এফেয়ার্সের ছোট্ট বই পড়ে নেয়া।

আন্তর্জাতিক বিষয়াবলীতে পরিবেশ ইস্যুর সিলেবাস ছোট্ট, তবে তা ৪ মার্কস। আবার রিসেন্ট এফেয়ার্স থেকে ৪ মার্কস। তাই এ দু জায়গায় বেশি জোর দেয়া যেতে পারে। এছাড়াও বিভিন্ন দেশ সম্পর্কে ধারনা, প্রণালিসমূহ, ভূরাজনীতি ইত্যাদি জানতে মানচিত্র সম্পর্কে পর্যাপ্ত ধারণা নিতে হয়। সময় থাকলে মৌলিক বইয়ের মধ্যে তারেক শামসুর রেহমানের ‘বিশ্ব রাজনীতির ১০০ বছর’পড়তে পারেন।

ভূগোল
১. জর্জ MP3

বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক পড়তে গেলে ভূগোলের বেশ বড় একটা অংশ পড়া হয়ে যায়। বাকি অংশটুকু ভূগোল বই থেকে পড়ে নেয়া যেতে পারে।

নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন
১. ‘‘পৌরনীতি ও সুশাসন-১ম পত্র, মোজাম্মেল হক’’-এর প্রথম ৪-৫টি অধ্যায়।

পাশাপাশি প্রিভিয়াস প্রশ্নসমূহ পড়ে নেয়া যেতে পারে। বার্টান্ড রাসেলসহ কয়েকজন দার্শনিক সম্পর্কে বেসিক জেনে নেয়া যেতে পারে। নৈতিকতায় খুব বেশি জোর দেয়ার প্রয়োজন দেখি না। মোটামুটি ৪-৫টা প্রশ্ন এখান থেকে প্রিভিয়াস ও কমনসেন্স থেকে পারা যায়।

মডেল টেস্ট
পরীক্ষার ৩০-৪৫ দিন আগে থেকে কোনো একটি মডেলটেস্ট বই থেকে মডেলটেস্ট দেয়া শুরু করতে পারেন। এছাড়াও লাইভ এমসিকিউতে পরীক্ষা দিতে পারেন। অথবা কোনো কোচিংয়ে মডেল টেস্ট দিতে পারেন।

ডাইজেস্ট
আমি কখনো পড়িনি। আপনাদেরও না পড়াই বেটার। এটা মনে হয়েছে এক প্রকার প্রশ্ন ও উত্তর টাইপ বই। যেখানে আপনি বিস্তারিত পড়ার সুযোগ পাচ্ছেন না। তাই, যে বইগুলো পড়েছেন পরীক্ষার আগে সেগুলো রিভাইস করাই বেটার।

উপর্যুক্ত আলোচনায় শুধু কোন বিষয়ে কোন বই পড়া যায়, বা কিভাবে পড়া যায় তা আলোচনা হয়েছে। প্রতিটি বিষয়ের ‘কি কি পড়বো, কি কি বাদ দেবো’ তা আপনাকেই নির্ধারণ করতে হবে। সবার জন্য শুভকামনা।

লেখক: ৪০তম বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত